গত ১৬ ফেব্রুয়ারি’২১ দিবাগত রাতে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রাবাসে প্রবেশ করে যে সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয়েছে তা দেশের আইনশৃঙ্খলার বেহাল দশার ইঙ্গিত বহন করে। শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা মাফিয়াতন্ত্রের স্পষ্ট আস্ফালন। দেশের আইনি ও বিচার কাঠামো ভেঙ্গে যাওয়ায় মানুষ সন্ত্রাসী কার্যক্রম করার দুঃসাহস দেখাচ্ছে বলে ববি শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে এক যৌথ বিবৃতিতে ইশা ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরুল করীম আকরাম ও সেক্রেটারি জেনারেল শেখ মুহাম্মদ আল-আমিন উপর্যুক্ত মন্তব্য করেন।

নেতৃদ্বয় বলেন, শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার পর থেকে আমরা ঘটনার গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করছি। ইশা ছাত্র আন্দোলন ববি শাখা এবং বরিশাল জেলা ও মহানগর শাখাকে আহত শিক্ষার্থীদের পাশে থাকার পরামর্শ দিয়েছি এবং সাধ্যমত সহযোগিতা নিশ্চিত করতে নির্দেশনা প্রদান করেছি।

নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, শিক্ষার্থীদের ওপর নৃশংস হামলায় আমরা বিস্মিত ও উদ্বিগ্ন। সাধারণ জনগনের হাতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা জাতি হিসেবে আমাদের জন্য লজ্জার। শিক্ষার্থীদের ওপর এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনা সভ্য সমাজে কোন ভাবেই মেনে নেওয়া যায়না।

নেতৃবৃন্দ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাস শিক্ষার্থীদের রক্ত ও ঘামের ইতিহাস। শিক্ষার্থীদের উস্কানি দিয়ে দেশের শান্তিশৃঙ্খলা কল্পনা করা যায়না। তাই যেসকল সন্ত্রাসীরা বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর নগ্ন হামলা চালিয়ে শিক্ষার্থীদের রক্তাক্ত করেছে তাদের অতিসত্বর গ্রেফতার করে দ্রুত বিচার আইনে শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। অন্যথায় ইশা ছাত্র আন্দোলন সাধারণ শিক্ষার্থীদের সাথে নিয়ে দেশব্যাপী ছাত্র আন্দোলন গড়ে তুলতে বাধ্য হবে।