দেশে দুর্নীতি এক মহামারিতে পরিণত হয়েছে। রাষ্ট্র যন্ত্রের প্রতিটি সেক্টর দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে। ক্ষমতাসীনদের লাগামহীন দূর্নীতির দরুণ বিশ্বদরবারে বাংলাদেশ আজ ঘৃণার পাত্রে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর সিনিয়র নায়েবে আমির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করীম (শায়খে চরমোনাই)।

গতকাল (০৮ ফেব্রুয়ারি’২১) সোমবার সকাল ১০ টায় পল্টনস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরুল করীম আকরাম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জেলা প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন। শায়খে চরমোনাই বলেন, বিগত দশ দেশের দুর্নীতির ফিরিস্তি দেখলে চোখ কপালে উঠার যায়। প্রতিবছর দেশের সামগ্রিক বাজেটের সমপরিমাণ বা তার চেয়েও বেশি টাকা লুটপাট হচ্ছে। নাম মাত্র কিছু উন্নয়ন দেখিয়ে দুর্নীতিবাজ নেতারা প্রতিবছর লক্ষ লক্ষ কোটি টাকা বিদেশে পাচার করে দেশের অর্থনীতিকে হুমকির মূখে ঠেলে দিয়েছে। এরা কখনো দেশের রক্ষক হতে পারে না। এরা রক্ষক নামের ভক্ষক। সুতরাং দুর্নীতির শেকড় উপড়ে ফেলার মাধ্যমে শতভাগ উন্নয়ন নিশ্চিত করা ও ইনসাফভিত্তিক সমাজ বিনির্মাণের জন্য ইসলাম প্রতিষ্ঠার বিকল্প নেই।

সভাপতির বক্তব্যে কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরুল করীম আকরাম বলেন, চলতি দশক কয়েকটি কারণে তাৎপর্যপূর্ণ। এই দশকেই খেলাফত পরবর্তী বিশ্ব এক’শ বছর পার করতে চলছে, পাশাপাশি সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার শপথে বলিয়ান প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ ও তার সুবর্ণজয়ন্তীর দ্বারপ্রান্তে। আর অন্য দিকে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনও পথচলার ৩০তম বসন্তে পদার্পণ করেছে। এই ত্রিমূখি বাস্তবতাকে সামনে রেখে ইশা ছাত্র আন্দোলনকে ছাত্র সমাজসহ উম্মাহ’র হারোনো সম্পদ খিলাফত আলা মিনহাজিন নুবুয়্যাহ প্রতিষ্ঠার জন্য নতুন করে দীপ্ত শপথ নিতে হবে।

সেক্রেটারি জেনারেল শেখ মুহাম্মাদ আল-আমিন এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত জেলা প্রতিনিধি সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি শরিফুল ইসলাম রিয়াদ, সাংগঠনিক সম্পাদক এম এম শোয়াইব, প্রশিক্ষণ সম্পাদক ইউসুফ আহমাদ মানসুর, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক কেএম শরীয়াতুল্লাহ, দাওয়াহ ও অফিস সম্পাদক এইচ এম সাখাওয়াত উল্লাহ, প্রকাশনা সম্পাদক মুহাম্মাদ ইবরাহীম হুসাইন, প্রচার ও আন্তর্জাতিক সম্পাদক নূরুল বশর আজিজী, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় সম্পাদক এম.এ হাসিব গোলদার, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় সম্পাদক শেখ ইহতেশাম বিল্লাহ আজিজী, কওমি মাদরাসা সম্পাদক মুহাম্মাদ সিরাজুল ইসলাম প্রমূখ।