4 weeks ago
হে মু‌মিনগণ! তোমা‌দের ওপর রোজা ফরজ করা হ‌য়ে‌ছে, যেম‌নিভা‌বে ফরজ করা হ‌য়ে‌ছিল তোমা‌দের পূর্বব‌র্তি‌দের ওপর। যা‌তে তোমরা তাকওয়া অর্জন কর‌তে পা‌রো। [সূরা বাকারা-১৮৩]
4 weeks ago
কুরআন নাযিলের মাসে কুরআন তিলাওয়াতের পাশাপাশি সমাজে কুরআন-সুন্নাহর আইন ও আদর্শ প্রতিষ্ঠার শপথ নিন- ইশা ছাত্র আন্দোলন
4 weeks ago
এই রমযান মাসেই মানুষের জন্য হেদায়েত এবং সত্যান্বেষীদের জন্য সুস্পষ্ট পথনির্দেশ নিয়ে কুরআন নাজিল হয়েছে; যা হক ও বাতিলের মাঝে পার্থক্যকারী। [সুরা বাকারা: ১৮৫]
4 weeks ago
সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় নীতির পরিবর্তন চাই- ইশা ছাত্র আন্দোলন
1 month ago
বাজেট হতে হবে শিক্ষা ও উদ্যোক্তাবান্ধব এবং কর্মসংস্থানে থাকতে হবে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা- এম হাছিবুল ইসলাম, সেক্রেটারি জেনারেল, ইশা ছাত্র আন্দোলন

হযরত আনাস রা. হতে বর্ণিত- রাসুল সা. এরশাদ করেছেন, “কোন বেহেশতবাসীকে যদি দুনিয়ার সকল সম্পদ দেয়া হয়, তথাপি সে পৃথিবীতে ফিরে যাওয়া পছন্দ করবে না। একমাত্র আল্লাহর পথে শাহাদাত বরণকারী ব্যক্তি এর ব্যতিক্রম। সে কামনা করবে, দুনিয়াতে পুনরায় তাকে পাঠানো হোক এবং আরোও দশ বার সে শাহাদাত লাভ করে আসুক। শাহাদাতের মর্যাদা ও সম্মান সে নিজ চোখে দেখবে, তার কারণেই সে এরূপ আকাঙ্খা করবে।” (বুখারি, মুসলিম, তিরমিযি)

রাবী পরিচিতি
হযরত আনাস রা. এর পিতার নাম মালেক, মাতার নাম উম্মে সুলাইম বিনতে মেলহান, তাঁর উপনাম; আবু হামজা, আবু উমাইয়া, আবু উমামা, আবু উমায়মা। উপাধি : খাদেমুর রাসুল।

হযরত আনাস রা. কে তাঁর মাতা দশ বছর বয়সে রাসুল সা. এর খেদমতে রেখে যান এবং পরবর্তী দশ বছর পর্যন্ত তিনি রাসুল সা. এর খেদমত করেন। এত দীর্ঘ সময় আর কোন সাহাবী রাসুল সা. এর খেদমত করার সুযোগ পাননি । বয়স স্বল্পতার কারণে তিনি বদর ও উহুদ যুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে পারেননি। পরবর্তী খাইবারসহ সকল অভিযানে তিনি অংশগ্রহণ করেন এবং বীরত্বের পরিচয় দেন। হযরত আবু বকর রা. এর খেলাফত কালে তিনি বাহরাইনের আমেল বা গভর্নর নিযুক্ত হন। হযরত উমার রা. এর খেলাফত কালে বসরার মুফতি হিসাবে নিযুক্ত হন।

আল্লামা আইনী রহ. এর মতে, তাঁর বর্ণিত হাদিস সংখ্যা (১২৮৬) এক হাজার দুইশত ছিয়াশি। তন্মধ্যে বুখারি ও মুসলিম শরীফে যৌথভাবে ১৬৮ টি হাদিস উল্লেখ রয়েছে। রাসুলে আরাবী সা. এর দোয়ার বরকতে তিনি দীর্ঘ হায়াত, বহু সম্পদ ও একশত সন্তানের জনক হয়েছিলেন। এই প্রাচীনতম সাহাবী বসরায় ১১০ বছর বয়সে ইন্তেকাল করেন। তাঁর থেকে ইমাম যুহুরী, কাতাদা, ইসহাক প্রমূখ মনীষীগণ হাদিস বর্ণনা করেন।

হাদিসের ব্যাখ্যা
একজন মুমিন ব্যক্তি জান্নাতে প্রবেশের পরে দুনিয়ার সকল সম্পদ তাকে দান করলেও সে পুনরায় দুনিয়ায় ফিরে আসতে চাইবে না। অথচ শহীদ ব্যক্তি বার বার ফিরে আসতে চাইবে। একজন মুমিন ও একজন শহীদের এই যে পরস্পর বিরোধী অবস্থান, মূলত এর কারণ কি? একে তো কোন অল্প বুদ্ধির মানুষও চিরস্থায়ী আখিরাতের বিনিময়ে ক্ষণস্থায়ী দুনিয়াতে আসতে চাইবে না। উপরন্তু সবচেয়ে ছোট জান্নাত যাকে দেওয়া হবে, তাঁর জান্নাতের আয়তন হবে দশ দুনিয়ার সমান। এতো গেল স্থায়িত্ব ও আয়তনের কথা। আল্লাহ তা’য়ালা জান্নাতিদের যে সকল নেয়ামত প্রদান করবেন তার কিয়দংশের মূল্যও কি সমগ্র দুনিয়ার আছে? সমগ্র দুনিয়া খুঁজেও কি জান্নাতিদের দেওয়া হুর সমতুল্য একজন হৃদয়স্পর্শী, মনোহারিণী নারী খুঁজে পাওয়া যাবে? পৃথিবীর নারীরা তাদের নখের সৌন্দর্যের সমতুল্যও নয়।

এ ছাড়া দুনিয়া মাদ্দাগতভাবে সুখ-দুঃখের সংমিশ্রণে তৈরি। যেখানে চিরন্তন সুখ অবান্তর। আর জান্নাত চির সুখের স্থান। সময়ের আবর্তন দুনিয়ার মানুষের জীবনকে শিশু, যুবক, বৃদ্ধ তিন ভাগে ভাগ করে, যার দু’টি ভাগ সম্পদ ভোগের অনুপযোগী। আর জান্নাতে বান্দা চির যৌবন, স্বভাবতই জান্নাত মুমিনের চির আরাধ্য। এর বিপরীতে মুমিনের নিকট দুনিয়ার মূল্য সিকি পরিমাণও নয়। তাই একজন মুমিন সমগ্র দুনিয়ার বিনিময়েও জান্নাত ছাড়তে চাইবে না এটাই স্বাভাবিক।

কিন্তু একজন শহীদের আরাধনা কেন এ রকম? তাও একবার-দুইবার নয়, হাদিসে দশ বার শব্দটি ব্যবহার হয়েছে। এ দশ বার অর্থ শাব্দিক অর্থে নয়; বরং বার বার অসংখ্য বার হওয়াই বাঞ্ছনীয়। অপরদিকে একজন শহীদের জান্নাত একজন সাধারণ মুমিনের জান্নাত থেকে অনেকগুণ শ্রেষ্ঠ, তা বলাই বাহুল্য। মর্যাদার দিক থেকেও একজন শহীদ প্রথম স্তরের জান্নাতি। তবুও আল্লাহর দরবারে তার এরূপ চাওয়া। এতেই বুঝা যায়, শহীদী মৃত্যু কতটা সম্মানের, কতটা ঈর্ষণীয় ও আনন্দদায়ক। (চলবে…)

লেখক
সাবেক কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি
ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন